বুধবার, মে ২২, ২০২৪

আওয়ামী লীগ নেতা পিটিয়ে মানুষ মারলো, হেনস্তা করলো মৃত ব্যক্তির মেয়েকেও

দক্ষিণ কেরানীগঞ্জ স্বেচ্ছাসেবক লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক আফতাব উদ্দিন রাব্বি ও তার প্রায় ২৫ জন সহযোগী তাকে ঘিরে নির্বিকার বসে ছিলেন।

by ঢাকাবার্তা ডেস্ক
আওয়ামী লীগ নেতা পিটিয়ে মানুষ মারলো, হেনস্তা করলো মৃত ব্যক্তির মেয়েকেও

রাজধানী ডেস্ক।।

মেঝেতে নিশ্চল পড়ে ছিলেন সাইফুল ইসলাম রাসেল। তার মুখ থেকে রক্ত ঝরছিল, মুখে, শরীরে আঘাতের চিহ্ন। দক্ষিণ কেরানীগঞ্জ স্বেচ্ছাসেবক লীগের (আওয়ামী লীগ) সাংগঠনিক সম্পাদক আফতাব উদ্দিন রাব্বি ও তার প্রায় ২৫ জন সহযোগী তাকে ঘিরে নির্বিকার বসে ছিলেন।দক্ষিণ কেরানীগঞ্জের শুভাঢ্যা ইউনিয়নের দ্বিতল ভবন পারভীন টাওয়ারের নিচতলায় রাব্বির ‘টর্চার সেল-কাম-অফিসে’ গিয়ে এই দৃশ্য দেখতে পান রাসেলের স্ত্রী ইতি আক্তার রিয়া। রিয়া জানান, গত ১০ জানুয়ারি রাত সাড়ে ১২টার দিকে কেউ তাকে ফোন করে জানায়, রাব্বি তার স্বামীর ওপর নির্যাতন চালাচ্ছে। তিনি যত দ্রুত সম্ভব সেখানে যান।

‘রাসেলের শ্বাস নিতে কষ্ট হচ্ছিল এবং আমার সঙ্গে কথাও বলতে পারছিল না।’ গত মঙ্গলবার তেলঘাটে খেজুরবাগ বড়ইটোলার বাসা থেকে গণমাধ্যমকে রিয়া বলেন, ‘রাসেলকে হাসপাতালে নিয়ে যাওয়ার অনুমতির জন্য আমি রাব্বির কাছে কাকুতি-মিনতি করি। রাব্বি রাসেলের বন্ধু ছিল।’

রাব্বি তাকে বলেছিল, রাসেলকে আগে ২০ লাখ টাকা ফেরত দিতে হবে। তবে রাসেল কীভাবে তার কাছে ওই টাকা পাওনা ছিল তা তিনি বলেননি।

দক্ষিণ কেরানীগঞ্জের শুভাঢ্যা ইউনিয়নের দ্বিতল ভবন পারভীন টাওয়ারের নিচতলায় রাব্বির 'টর্চার সেল-কাম-অফিসে' গিয়ে এই দৃশ্য দেখতে পান রাসেলের স্ত্রী ইতি আক্তার রিয়া। ঢাকাবার্তা।।

দক্ষিণ কেরানীগঞ্জের শুভাঢ্যা ইউনিয়নের দ্বিতল ভবন পারভীন টাওয়ারের নিচতলায় রাব্বির ‘টর্চার সেল-কাম-অফিসে’ গিয়ে এই দৃশ্য দেখতে পান রাসেলের স্ত্রী ইতি আক্তার রিয়া। ঢাকাবার্তা।।

‘আমি তাকে বলেছিলাম যেভাবেই হোক আমি টাকা ফেরত দেব, এমনকি যদি আমাকে আমার এবং আমাদের একমাত্র মেয়ের কিডনিও বিক্রি করতে হয় তাও ফেরত দেব, তারপরও যত তাড়াতাড়ি সম্ভব রাসেলকে হাসপাতালে নিয়ে যান। রাব্বি কোনো কথাই গ্রাহ্য করেনি।’

রাসেল অজ্ঞান হয়ে গেলে রাব্বি তার লোকদের রিয়ার কাছ থেকে ফোন কেড়ে নেওয়ার নির্দেশ দেয় যাতে সে কাউকে ফোন করে এ ঘটনা জানাতে না পারে। এরপর রাত ২টার দিকে রাব্বির অফিস থেকে প্রায় ৩০০ গজ দূরের বাসায় গিয়ে রাসেলের চেক বই এনে রাব্বির হাতে দেন রিয়া। এরপর রাব্বি তার সহযোগীদের নির্দেশ দেন রাসেলকে বাসায় দিয়ে আসতে।

‘একটা চটের বস্তায় করে ওরা ওকে আমাদের বাড়িতে নিয়ে আসে। দুপুর ১টা পর্যন্ত তারা ওই বাড়ি পাহারা দিলেও চিকিৎসক রাসেলকে মৃত ঘোষণা করার সঙ্গে সঙ্গে তারা পালিয়ে যায়।’

রিয়া বলেন, ‘তাদের মধ্যে চার জন আমার মেয়েকে একটি ঘরে এবং আমি ও আমার স্বামীকে অন্য ঘরে রাখে এবং অস্ত্র নিয়ে দরজায় দাঁড়িয়ে থাকে যাতে আমি কাউকে ডাকার সাহস না পাই।’

তারা পালিয়ে যাওয়ার পর রাসেলের পরিবারের লোকজন তাকে স্যার সলিমুল্লাহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসকও তাকে মৃত ঘোষণা করেন।

 

রিয়া জানান, এ ঘটনায় আমার মেয়ে ষষ্ঠ শ্রেণির শিক্ষার্থী জান্নাতুল ফেরদৌস অ্যাঞ্জেল ভয়ে-আতঙ্কে চুপ হয়ে গেছে।

ঘটনার পরদিন ১১ জানুয়ারি রাব্বি ওর তার সহযোগী ১২ জনের নামে ও অজ্ঞাত আরও ১০-১৫ জনের বিরুদ্ধে মামলা হয়। মামলার বাদী রাসেলের বাবা বীর মুক্তিযোদ্ধা তোফাজ্জল হাওলাদার।

যদিও রিয়া বলেন, ‘আমার শ্বশুর, যিনি এই ঘটনা সম্পর্কে বিশেষ কিছু জানেন না, তাকে অভিযোগকারী করা হয়েছে।’

বিস্তারিত উল্লেখ না করে তিনি বলেন, মামলার পর থেকে বিভিন্ন মহল থেকে চাপ ও ভয়ভীতির সম্মুখীন হচ্ছেন তিনি।

এদিকে বাবাকে নিয়ে থানায় যাওয়া রাসেলের ভাই হৃদয় হাওলাদার বলেন, ‘পুলিশ আমাদের কথা শোনার চেষ্টাই করছিল না এবং নিজেরাই মামলা রুজু করেছে। তাদের নিজস্ব বক্তব্য দিয়ে এবং আমার বাবাকে বাদী বানিয়েছে। এমনকি আমরা এটাও জানি না তারা কী লিখেছে। তবে আমরা জানি যে তারা প্রথমে অভিযুক্তদের পক্ষেই ছিল। তবে ঘটনার ভিডিও ফেসবুকে ভাইরাল হওয়ার পর তারা তাদের অবস্থান ও মামলা পাল্টিয়েছে।

মামলার প্রাথমিক বিবরণ অনুযায়ী, রাসেল ১০ জানুয়ারি সকাল ৮টার দিকে বাসা থেকে বের হন এবং ঘণ্টাখানেক পর রাব্বির সঙ্গে তাকে দেখা যায়। শারীরিকভাবে লাঞ্ছিত হওয়ার পর তাকে বাড়িতে পাঠানো হয়, তার পরে তার স্ত্রী তাকে হাসপাতালে নিয়ে যান, যেখানে তাকে মৃত ঘোষণা করা হয়।

রিয়া যে ঘটনাস্থলে উপস্থিত ছিলেন কিংবা বাড়িতে নিয়ে যাওয়ার আগে রাসেলের নিথর দেহ যে বস্তায় ভরে রাখা হয়েছিল তা বিবৃতিতে উল্লেখ করা হয়নি।

তবে পারিবারিক ও স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, ৯ জানুয়ারি রাত ১০টা সাড়ে ১০টার দিকে রাসেলকে কিছু লোক তুলে নিয়ে যায় এবং তার মৃত্যুর বীভৎস ভিডিও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়ার আগ পর্যন্ত তার মৃত্যুর কোনো তদন্ত হয়নি।

ঢাকা জেলা পুলিশ সুপার মো. আসাদুজ্জামান গতকাল বুধবার তার কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে জানান, রাব্বিসহ ১১ জনকে আটক করা হয়েছে। কবে তাদের আটক করা হয়েছে তা তিনি স্পষ্ট করেননি। ঝিনাইদহের মহেশপুর উপজেলার বাঁশবাড়িয়া বাজার থেকে রাব্বি এবং তার চার সহযোগী সজিব, রাজিব, হীরা ও ফিরোজকে গ্রেপ্তার করা হয়।

ভোলার লালমোহন থেকে আলমগীর ওরফে ঠান্ডু, আমির, রনি, দেলোয়ার ওরফে দেলু, শিপন, মাহফুজ ও রতন শেখকে গ্রেপ্তার করা হয়।

পরে ঢাকার একটি আদালত নয় জনকে তিন দিনের রিমান্ডে দেন এবং অন্য তিন জন – সজিব, আমির এবং আলমগীর দুটি পৃথক বিচারিক ম্যাজিস্ট্রেটের সামনে হত্যার সঙ্গে জড়িত থাকার কথা স্বীকার করেন।

এসপি আসাদুজ্জামান বলেন, রাব্বির নামে চাঁদাবাজি করতেন রাসেল এবং রাব্বি ও তার সহযোগীদের শেয়ার না দিয়েই সব আত্মসাৎ করেন। যে কারণে তাদের মধ্যে বিবাদ হয়।

‘তাকে শিক্ষা দেওয়ার জন্য, রাব্বি ও তার লোকজন তাকে অফিসে ডেকে নিয়ে সারারাত তার ওপর নির্যাতন চালায়। তারা তার চুলও কেটে দেয়। একপর্যায়ে রাসেল তার জীবন ভিক্ষা চাইলেও অজ্ঞান না হওয়া পর্যন্ত তারা তাকে নির্যাতন করতে থাকে,’ বলেন এসপি।

শুভাঢ্যা ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি বাছের উদ্দিনের ছেলে ও ঢাকা জেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক ও শুভাঢ্যা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ইকবাল হোসেনের ভাতিজা রাব্বি পারিবারিক প্রভাবে স্বেচ্ছাসেবক লীগের নেতা হয়েছেন।

 

আরও পড়ুন: লোকজ উৎসব উদ্বোধন করবেন এমপি কায়সার

You may also like

প্রকাশক : জিয়াউল হায়দার তুহিন

সম্পাদক : হামীম কেফায়েত

গ্রেটার ঢাকা পাবলিকেশন
নিউমার্কেট সিটি কমপ্লেক্স
৪৪/১, রহিম স্কয়ার, নিউমার্কেট, ঢাকা ১২০৫

যোগাযোগ : +8801712813999

ইমেইল : news@dhakabarta.net