বুধবার, মে ২২, ২০২৪

উপজেলা হাসপাতালে ঝটিকা অভিযানে গিয়ে স্বাস্থ্যমন্ত্রী দেখলেন কর্মকর্তা নেই

অভিযানকালে স্বাস্থ্যমন্ত্রী জৈন্তাপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের অপারেশন থিয়েটার, পুরুষ ও মহিলা ওয়ার্ড রুম, স্টাফ কোয়ার্টারসহ বিভিন্ন কক্ষ ঘুরে দেখেন। তিনি হাসপাতালে উপস্থিত ইনডোর ও আউটডোর রোগীদের সঙ্গে কথা বলেন এবং তাদের চিকিৎসার খোঁজ-খবর নেন।

by ঢাকাবার্তা ডেস্ক
উপজেলা হাসপাতালে ঝটিকা অভিযানে গিয়ে স্বাস্থ্যমন্ত্রী দেখলেন কর্মকর্তা নেই

স্টাফ রিপোর্টার।।

সিলেটের জৈন্তাপুর উপজেলা (হাসপাতাল) স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স এবং বিশ্বনাথ স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স কার্যালয়ে ঝটিকা অভিযান পরিচালনা করেছেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী ডা. সামন্ত লাল সেন। এসময় কর্মক্ষেত্রে অননুমোদিত অনুপস্থিতির কারণে জৈয়ন্তপুর উপজেলা পরিবার পরিকল্পনা (ভারপ্রাপ্ত) কর্মকর্তা রেন্টু পুরকায়স্থকে সাময়িক বরখাস্ত করার নির্দেশ দিয়েছেন তিনি। বুধবার দুপুরে স্বাস্থ্যমন্ত্রী এই ঝটিকা অভিযানে যান।

‘মন্ত্রণালয়ের দায়িত্বপ্রাপ্ত মন্ত্রী কর্তৃক কার্যালয় পরিদর্শনকালীন অফিসে অননুমোদিত অনুপস্থিত থাকা এবং সরকারি কর্তব্যে অবহেলা ও দায়িত্বহীনতার জন্য রেন্টু পুরকায়স্থকে নির্দেশক্রমে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়েছে’ জানিয়ে বুধবার মন্ত্রণালয়ের উপসচিব শারমিন ইয়াসমিন স্বাক্ষরিত এ সংক্রান্ত একটি প্রজ্ঞাপন ইতোমধ্যেই জারি করা হয়েছে।

অভিযানকালে স্বাস্থ্যমন্ত্রী জৈন্তাপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের অপারেশন থিয়েটার, পুরুষ ও মহিলা ওয়ার্ড রুম, স্টাফ কোয়ার্টারসহ বিভিন্ন কক্ষ ঘুরে দেখেন। তিনি হাসপাতালে উপস্থিত ইনডোর ও আউটডোর রোগীদের সঙ্গে কথা বলেন এবং তাদের চিকিৎসার খোঁজ-খবর নেন। পরিদর্শনকালে জৈন্তাপুর কমপ্লেক্সে বেশকিছু অনিয়ম দেখতে পান স্বাস্থ্যমন্ত্রী। সেখানে কমপ্লেক্স চত্তরে সহজে দৃষ্টিযোগ্য স্থানে চিকিৎসকদের ব্যক্তিগত চেম্বারের স্থান পরিবর্তন সংক্রান্ত বিজ্ঞাপন দেখে বিষ্ময় প্রকাশ করে উপস্থিত স্বাস্থ্য কর্মকর্তাদের এর কারণ ব্যাখ্যা করার নির্দেশ দেন।

স্বাস্থ্যমন্ত্রী এ সময় উপস্থিত কর্মকর্তাদের উদ্দেশে বলেন, ‘একটি সরকারি প্রতিষ্ঠানের ভেতরে দৃষ্টিযোগ্য স্থানে চিকিৎসকদের স্থান পরিবর্তন সংক্রান্ত বিজ্ঞাপন কীভাবে থাকতে পারে? প্রাইভেট ক্লিনিক ও চেম্বারের সঙ্গে এই সরকারি স্বাস্থ্যকেন্দ্রের কারো স্বার্থ না থাকলে এটি হতে পারতো না।’

সামন্ত লাল সেন সেখানে হাত পরিষ্কার করতে হ্যান্ড স্যানিটাইজার চাইলে উপস্থিত কর্মকর্তারা সেটি দিতে ব্যর্থ হলে তিনি বলেন, ‘একটি সরকারি স্বাস্থ্যকেন্দ্র চলছে অথচ সেখানে কোনো হ্যান্ড স্যানিটাইজার ব্যবহার করা হয় না। এটি কীভাবে হতে পারে? একটি উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স এ সরকার কোটি কোটি টাকা ব্যয় করে ওই উপজেলার মানুষদের স্বাস্থ্যসেবা দেওয়ার জন্য। কিন্তু স্বাস্থ্যসেবা যারা দিবেন তারা যদি দায়িত্বশীল না থাকেন তাহলে তো সাধারণ মানুষ উপকৃত হবে না। সরকার যে জন্য বিনামূল্যে মানুষকে স্বাস্থ্যসেবা দিতে চাচ্ছে সেটিও পূরণ হবে না। আমি পরিষ্কার ভাষায় এখানে বলে যাচ্ছি, আমি শুধু বেসরকারি স্বাস্থ্যকেন্দ্রের ত্রুটিই দেখব না। সরকারি হাসপাতালে এ ধরনের অব্যবস্থাপনা হলে সংশ্লিষ্ট কেউই মাফ পাবে না।’

স্বাস্থ্যমন্ত্রী স্বাস্থ্যকেন্দ্রটির ইমার্জেন্সি রুম অত্যন্ত ছোট দেখেতে পেয়ে কক্ষটিকে বড় করার নির্দেশনা দেন। অপারেশন থিয়েটার থাকার পরও সেগুলোতে কোনো রোগীর অপারেশন হতে না পারার জন্য মন্ত্রী এসময় উপস্থিত কর্মকর্তাদের প্রতি উষ্মা প্রকাশ করেন। অন্যান্য কক্ষ পরিদর্শন করে সেগুলো আরও মেরামত করার নির্দেশ দেন এবং এখানকার প্রয়োজনীয় যন্ত্রপাতি ও লোকবলের চাহিদা জানিয়ে মন্ত্রণালয়ে চিঠি দিতে বলেন। কিছুদিন আগে জৈন্তাপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ডে ক্ষতিগ্রস্ত কক্ষও পরিদর্শন করেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী।

পরে গত ৫ ফেব্রুয়ারি মঙ্গলবার সড়ক দুর্ঘটনায় তিনজন স্থানীয় ব্যক্তির নিহত হওয়ার ঘটনায় নিহতদের আত্মার প্রতি শান্তি কামনা করে শোক ও দু:খ প্রকাশ করেন। স্বাস্থ্যমন্ত্রী সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত একজনের পিতা জৈন্তাপুর উপজেলা আওয়ামী লীগ নেতা লিয়াকত আলীর বাসায় যান এবং শোকসন্তপ্ত পরিবারের প্রতি গভীর সমবেদনা জ্ঞাপন করেন।

এর কিছু সময় পর স্বাস্থ্যমন্ত্রী বিশ্বনাথ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স পরিদর্শন করেন। তিনি এই স্বাস্থ্যকেন্দ্র পরিদর্শন করে এখানে সব স্বাস্থ্যকর্মীদের কর্মস্থলে উপস্থিত দেখতে পান। স্বাস্থ্যমন্ত্রী বিশ্বনাথ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স পরিদর্শন করে এখানকার কার্যক্রমে সন্তোষ প্রকাশ করেন। বিশ্বনাথ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে উপস্থিত স্বাস্থ্যকর্মীদের একত্র করে প্রয়োজনীয় কিছু দিক নির্দেশনা দেন এবং চিকিৎসা সেবা দিতে সবাইকে আরও সতর্ক থাকতে বলেন।

স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেন, ‘আমি কোনো মিডিয়ায় স্বাস্থ্যকেন্দ্র নিয়ে নেতিবাচক খবর দেখতে চাই না। স্বাস্থ্যকেন্দ্র মানুষের স্বাস্থ্যসেবার জন্য। কাজেই মানুষ যেন সঠিক সেবা পায়, রোগীরা যেন অসম্মানিত না হয় সেটি সবাইকেই খেয়াল করতে হবে।’

অভিযান চলাকালে স্থানীয় এমপি ও প্রবাসী কল্যাণ মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী শফিকুর রহমান চৌধুরী, স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের মহাপরিচালক এবিএম খুরশীদ আলম, বিএমএ মহাসচিব এহতেশামুল হক চৌধুরী, সিলেট বিভাগীয় পরিচালক (স্বাস্থ্য), সিভিল সার্জন সিলেট সহ অন্যান্য উর্দ্ধতন কর্মকর্তারা স্বাস্থ্যমন্ত্রীর সঙ্গে উপস্থিত ছিলেন।

 

আরও পড়ুন: বুধবার থেকে রেস্তোরাঁ ও ভবনের অগ্নিনিরাপত্তা ঝুঁকি পরিদর্শনে মাঠে নামবে ডিএনসিসি

You may also like

প্রকাশক : জিয়াউল হায়দার তুহিন

সম্পাদক : হামীম কেফায়েত

গ্রেটার ঢাকা পাবলিকেশন
নিউমার্কেট সিটি কমপ্লেক্স
৪৪/১, রহিম স্কয়ার, নিউমার্কেট, ঢাকা ১২০৫

যোগাযোগ : +8801712813999

ইমেইল : news@dhakabarta.net