রবিবার, মে ১৯, ২০২৪

ছাত্রকে গুলি: অস্ত্রের তথ্য জানতে শিক্ষককে রিমান্ডে চায় পুলিশ

“রায়হান শরীফ শিক্ষার্থীকে গুলি করার মামলায় আদালতে ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছেন।”

by ঢাকাবার্তা ডেস্ক
ছাত্রকে গুলি: অস্ত্রের তথ্য জানতে শিক্ষককে রিমান্ডে চায় পুলিশ

স্টাফ রিপোর্টার।।

সিরাজগঞ্জের শহীদ এম মনসুর আলী মেডিকেল কলেজের ছাত্রকে গুলির ঘটনায় শিক্ষক রায়হান শরীফের অস্ত্রের উৎস ও অন্যান্য তথ্য জানতে আদালতে জিজ্ঞাসাবাদের আবেদন করেছে ডিবি পুলিশ।  সিরাজগঞ্জ জেলা ডিবির ওসি জুলহাজ উদ্দীন বুধবার বলেন, মঙ্গলবার বিকালে শিক্ষককে আদালতে হাজির করে সাত দিনের রিমান্ডের আবেদন করা হয়েছে। তিনি অস্ত্র কোথা থেকে কিনেছেন সেই স্বীকার করেছেন।

“তবে অস্ত্র মামলায় তার কাছে থেকে আরও তথ্য সংগ্রহ করা প্রয়োজন। তাকে রিমান্ডে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করা প্রয়োজন।”

আদালত এখনও রিমান্ড শুনানির দিন দেননি বলে জানান ডিবির ওসি।  সোমবার বিকালে মেডিকেল কলেজে মৌখিক পরীক্ষা চলাকালে প্রভাষক রায়হান শরীফের পিস্তলের গুলিতে আহত হন আরাফাত আমিন তমাল। তিনি ওই মেডিকেল কলেজের এমবিবিএস অষ্টম ব্যাচের তৃতীয় বর্ষের শিক্ষার্থী। তার পায়ে গুলি লাগে। খবর পেয়ে পুলিশ শিক্ষক রায়হান শরীফকে হেফাজতে নেয়; তার পিস্তলটিও জব্দ করা হয়। পরে তার কাছ থেকে আরেকটি বিদেশি পিস্তলসহ বেশ কিছু গুলি-অস্ত্র উদ্ধার করে ডিবি পুলিশ।

কমিউনিটি মেডিসিন বিভাগের প্রভাষক রায়হান শরীফ সিরাজগঞ্জ সরকারি কলেজের সাবেক অধ্যক্ষ অধ্যাপক আব্দুর রাজ্জাকের ছেলে; শহরের দত্তবাড়ি মহল্লায় তিনি থাকেন। আহত শিক্ষার্থী আরাফাত আমিন তমালের বাবা বগুড়ার ধুনট উপজেলার ধামাচামা গ্রামের আব্দুল্লাহ আল আমিন বাদী হয়ে প্রথম মামলাটি করেছেন। তমালের চার সহপাঠীকে সেখানে সাক্ষী করা হয়েছে।

অবৈধ পিস্তল ব্যবহারের অভিযোগে ডিবির এসআই ওয়াদুদ আলী বাদী হয়ে রায়হান শরীফের বিরুদ্ধে আরেকটি মামলা করেছেন। দুটি মামলাই ডিবি তদন্ত করছে। ডিবির ওসি জুলহাজ উদ্দীন বলেন, “দুটি মামলায় মঙ্গলবার বিকালে রায়হান শরীফ আদালতে হাজির করা হয়। এরপর তিনি শিক্ষার্থীকে গুলি করার মামলায় আদালতে ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছেন। অন্য মামলায় তার রিমান্ড চাওয়া হয়েছে।”

এদিকে বুধবার রাষ্ট্রপতির আদেশে স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রণালয়ের উপ-সচিব দুর-রে শাহওয়াজ স্বাক্ষরিত এক প্রজ্ঞাপনে তাকে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়।  এ বিষয়ে মেডিকেল কলেজের অধ্যক্ষ আমিরুল হোসেন চৌধুরী বলেন, প্রজ্ঞাপনে উল্লেখ করা হয়েছে, শহীদ এম মনসুর আলী মেডিকেল কলেজের কমিউনিটি মেডিসিন বিভাগের প্রভাষক মো. রায়হান শরীফ ফৌজদারি অপরাধে গ্রেপ্তার হওয়ায় তাকে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়েছে। সাময়িক বরাখাস্ত থাকাকালীন তিনি বিধি মোতাবেক খোরপোষ ভাতা প্রাপ্ত হবেন।

অধ্যক্ষ বলেন, “আন্দোলনরত শিক্ষার্থীদের দাবি ছিল রায়হান শরীফ যেন কলেজে থাকতে না পারেন। এরই মধ্যে তাকে সাময়িক বরখাস্তের চিঠি এসেছে। আশা করি, শিক্ষার্থীরা এখন শান্ত থাকবেন।” এদিকে ঘটনার তদন্তে স্বাস্থ্য শিক্ষা অধিদপ্তরের পক্ষ থেকে তিন সদস্যের তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়। কমিটিকে ৩ কার্যদিবসের মধ্যে প্রতিবেদন দিতে বলা হয়েছে। ওই কমিটির সদস্যরা মঙ্গলবার ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে সাক্ষ্য- প্রমাণ সংগ্রহ করেছেন।

 

আরও পড়ুন: মেডিক্যাল শিক্ষার্থীর পায়ে গুলি করলেন গুন্ডা শিক্ষক

You may also like

প্রকাশক : জিয়াউল হায়দার তুহিন

সম্পাদক : হামীম কেফায়েত

গ্রেটার ঢাকা পাবলিকেশন
নিউমার্কেট সিটি কমপ্লেক্স
৪৪/১, রহিম স্কয়ার, নিউমার্কেট, ঢাকা ১২০৫

যোগাযোগ : +8801712813999

ইমেইল : news@dhakabarta.net