শুক্রবার, মে ২৪, ২০২৪

জাবি ছাত্রীকে হেনস্তা, মৌমিতার ১৭টি বাস আটকে রেখেছে শিক্ষার্থীরা

by ঢাকাবার্তা
মৌমিতা পরিবহণ

জাবি প্রতিনিধি ।।

ঢাকা-সাভারগামী মৌমিতা পরিবহনের বাসের হেল্পার কর্তৃক জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের (জাবি) এক ছাত্রীকে হেনস্তার ঘটনা ঘটেছে। এ ঘটনার প্রতিবাদে মৌমিতা পরিবহনের ১৭টি বাস আটকে রেখেছে বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা।

বুধবার (১৫ মে) সকাল থেকে বাস আটক শুরু করে শিক্ষার্থীরা। সন্ধ্যা সাড়ে সাতটায় এই প্রতিবেদন লেখা পর্যন্ত বাসগুলো আটক রাখে শিক্ষার্থীরা।

এর আগে, মঙ্গলবার (১৪ মে) সন্ধ্যায় সাভারের ব্যাংক টাউন এলাকা থেকে টিউশন শেষে বিশ্ববিদ্যালয়ে ফেরার পথে সাভারের রেডিও কলোনি এলাকায় হেনস্তার শিকার হন বিশ্ববিদ্যালয়ের ৫১ ব্যাচের এক ছাত্রী। এ ঘটনায় বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর বরাবর একটি লিখিত অভিযোগ দিয়েছে ভুক্তভোগী ওই ছাত্রী।

অভিযোগপত্রে ভুক্তভোগী উল্লেখ করেন, আমি মঙ্গলবার সন্ধ্যা সোয়া ছয়টার দিকে ব্যাংক টাউন থেকে টিউশন করিয়ে মৌমিতা বাসে করে ক্যাম্পাসের উদ্দেশ্যে আসছিলাম। বাস চলাকালে হেল্পার ভাড়া চাইলে আমি টাকা দেই। হেল্পার বলে তার কাছে ভাংতি নাই, পরবর্তীতে আমাকে ভাংতি টাকা ফেরত দিবে। কিন্তু বাস রেডিও কলোনির কাছাকাছি আসার পর হেল্পার জানায় বাস আর সামনে যাবে না। বাসের যাত্রীরা সবাই তখন নেমে চলে যায়। আমি তখন হেল্পারকে ভাংতি টাকা ফেরত দেওয়ার জন্য বললে হেল্পার বলে, আপনাকে ঢাকা নিয়ে যাই।

ভুক্তভোগী তার অভিযোগপত্রে আরও উল্লেখ করেন, বাসে মাত্র তিনজন লোক ছিল। বাসের চালক, হেল্পার এবং ওদের সাথের একজন। ঢাকা নিয়ে যাবে বলেই, তারা আমাকে বাজেভাবে ইঙ্গিত দেয়। আমি খুব ভয় পেয়ে যাই। তাড়াহুড়ো করে বাস থেকে নামতে চেষ্টা করলে বাস ছেড়ে দেয়। আমি কিছু না ভেবে বাস থেকে লাফ দেই এবং হাঁটুতে প্রচুর ব্যথা পাই। এই ঘটনার পরে আমি মানসিকভাবে বিপর্যস্ত হয়ে পড়েছি। আমার ব্যাচমেটদের বিষয়টি জানালে ওরা আমাকে হাসপাতালে নিয়ে আসে।

এদিকে এ ঘটনার জেরে আজ সকাল আটটা থেকে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রধান ফটক সংলগ্ন ঢাক-আরিচা মহাসড়কে মৌমিতা পরিবহনের ১৭টি বাস আটক করে শিক্ষার্থীরা।

ভুক্তভোগী শিক্ষার্থীর সহপাঠী সোহেল রানা বলেন, গতকাল আমাদের বান্ধবীর সঙ্গে একটা খারাপ ঘটনা ঘটেছে। এর প্রতিবাদে আমরা মৌমিতা পরিবহনের বাস আটকে রেখেছি। আমরা বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর স্যার ও আশুলিয়া থানার পুলিশকে সঙ্গে নিয়ে ঘটনাস্থলে গিয়েছি। কিন্তু আশ্চর্যজনকভাবে সব সিসিটিভি ফুটেজ থাকলেও ৬.১০ থেকে ৬.১৮ পর্যন্ত সময়ের কোনো ফুটেজ পাওয়া যায়নি। আমরা এ ঘটনার সুষ্ঠু বিচার দাবি করছি।

আটক মৌমিতা পরিবহনের একটি বাসের চালক বলেন, সকালে ছাত্ররা আটক করতে শুরু করে। ঠিক কোন কারণে আটকানো হয়েছে তা জানি না। তবে বাস ছাড়ানোর বিষয়ে পরিবহন কর্তৃপক্ষ বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষের সঙ্গে কথা বলছে।

এ বিষয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর অধ্যাপক আলমগীর কবির বলেন, আমরা আশুলিয়া থানার পুলিশসহ ঘটনাস্থলে গিয়েছি। কিন্তু সিসিটিভি ফুটেজ দেখে আমরা কিছু শনাক্ত করতে পারিনি। আমরা বাস কর্তৃপক্ষকে জানিয়েছি, দ্রুত ওই বাসের হেল্পার ও চালককে শনাক্ত করে আমাদের জানাতে। পুলিশ ও চেষ্টা করছে তাদেরকে শনাক্ত করার জন্য।

You may also like

প্রকাশক : জিয়াউল হায়দার তুহিন

সম্পাদক : হামীম কেফায়েত

গ্রেটার ঢাকা পাবলিকেশন
নিউমার্কেট সিটি কমপ্লেক্স
৪৪/১, রহিম স্কয়ার, নিউমার্কেট, ঢাকা ১২০৫

যোগাযোগ : +8801712813999

ইমেইল : news@dhakabarta.net